1. multicare.net@gmail.com : news : chouddagram online
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
গুণবতী ইউনিয়ন বিএনপি নেতা সিরাজুল হককে দেখতে গেলেন বিএনপি নেতৃবৃন্দ চৌদ্দগ্রামে ব্র্যাকের বিজনেস অ্যাডভাইজরি ও মাইগ্রেশন ফোরাম কমিটির সভা অনুষ্ঠিত আধুনিক কনকাপৈত ইউনিয়ন গড়তে চেয়ারম্যান প্রার্থী ফখরুলের বিকল্প নেই ফেনীর সময় এর বৃক্ষায়ণ কর্মসূচী শুরু ডাকাতিয়া নদীতে তারুণ্য অগ্রযাত্রার বার্ষিক নৌকা ভ্রমণ অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রামে বিলকিছ আলম পাঠাগার পরিদর্শন করলেন ইউএনও কাশিনগরে মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়ার অভিমানে কিশোরের আত্মহত্যা ‘Radio Tehran has all the features of the media’ চৌদ্দগ্রামে ‘আমরা-৯৩ গ্রুপ’ এর বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধন সংযুক্ত আরব আমিরাতে চৌদ্দগ্রাম ফাউন্ডেশনের কমিটি গঠন

মডেল বানানোর ফাঁদে ফেলে তরুণীদের ধর্ষণ করতো হৃদয়

  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১১১ বার পড়া হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক:
দেওয়ান রসুল হৃদয় (১৯) কথিত মডেল। সে বিভিন্ন ভিডিও তৈরি করে তা টিকটক ও লাইকিতে আপলোড করে। সেখানে অভিনয়ের ফাঁদে ফেলে একে একে চার ছাত্রীকে নিজের বাসায় আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত ১৬ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর কুড়িলে হৃদয়ের বাসায় এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।ঘটনার শিকার ছাত্রীরা ভাটারা থানায় অভিযোগ দিলে সোমবার রাতে পুলিশ হৃদয়কে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ বলছে, পাশবিকতার শিকার ছাত্রীদের তিনজন কলেজ এবং একজন স্কুলের ছাত্রী। তাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে। তারা ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় থাকে। গ্রেপ্তার হৃদয় একজন ক্রমিক ধর্ষক (সিরিয়াল রেপিস্ট)।

পুলিশ জানায়, হৃদয় গত ১২ সেপ্টেম্বর নিজের বন্ধুদের নিয়ে গাজীপুরের একটি রিসোর্টে পার্টির আয়োজন করে। সেখানে পরিচয়ের সূত্রে দুই কলেজ শিক্ষার্থী মডেল হওয়ার আগ্রহ দেখায়। এর দু’দিন পর হৃদয়ের এক বান্ধবীর মাধ্যমে তারা কুড়িলে হৃদয়ের বাসায় আসে। টিকটকের শুটিং শুরু হওয়ার কথা বলে তাদের ওই বাসার নিচতলার একটি কক্ষে থাকতে দেওয়া হয়। এরপর ওই ছাত্রীদের ওপর পাশবিকতা চালায় সে। হৃদয়ের ফেসবুকে ‘টিকটক ও লাইকিতে অভিনয়ের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে’- এমন বিজ্ঞাপন দেখে গত ২০ সেপ্টেম্বর আরও দুই শিক্ষার্থী হৃদয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে। তাদেরও হৃদয় শুটিংয়ের কথা বলে নিজের বাসায় থাকতে দেয়। পরদিন সকালে তাদের মধ্যে একজনকে বাসার তৃতীয় তলায় নিয়ে পাশবিকতা চালানো হয়। ওই রাতেই আরেক শিক্ষার্থীর ওপর চলে পাশবিকতা। এভাবে ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চার শিক্ষার্থীকে নিজের বাসায় আটকে রেখে দিনের পর দিন ধর্ষণ করে হৃদয়।

পুলিশের গুলশান বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, ঘটনার শিকার তরুণী ও কিশোরীরা উচ্চাভিলাসী। তারা ভিডিও শেয়ারিং সাইট টিকটক ও লাইকিতে অভিনয়ের চেষ্টা করছিল। কেউ আবার মডেল হতে আগ্রহী। হৃদয় ওই সুযোগটাই কাজে লাগিয়েছে। ধর্ষণের পর তাদের নানা ভয় এবং মডেল বানানোর স্বপ্ন দেখিয়ে নিজের বাসায় আটকে রাখা হতো। মডেল হওয়ার স্বপ্নে এবং আতঙ্কে তারা মুখও খুলত না। হৃদয়ের টার্গেট ছিল রঙিন দুনিয়ার স্বপ্নে বিভোর তরুণী ও কিশোরীরা।

ভাটারা থানার ওসি মোক্তারুজ্জামান বলেন, ঘটনার শিকার চার ছাত্রীর একজন থানায় অভিযোগ দিয়েছিল। এরপর পুলিশ ঘটনা তদন্ত করতে গেলে কথিত মডেল হৃদয়ের হিংস্র রূপ বেরিয়ে আসে। পুলিশ জানতে পারে একজন নয়, একে একে চারজনকে ধর্ষণ করেছে ওই নরপশু।

তিনি বলেন, কুড়িলের বাড়িটি হৃদয়ের নিজস্ব। পরিচয় গোপন করে মেয়েদের বাড়ির নিচতলায় ভাড়াটে হিসেবে রাখত। সেখানে ঘটনার শিকার চারজনসহ আরও এক তরুণীকে পাওয়া গেছে। তবে ওই তরুণী তার প্রতি কোনো পাশবিকতা হয়নি বলে দাবি করেছেন। অবশ্য একজনের অভিযোগ তদন্তে গিয়ে আরও তিনজন হৃদয়ের পাশবিকতার বিবরণ দিয়েছে। গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হৃদয়ও তার অপকর্মের কথা স্বীকার করেছে।

পুলিশের তদন্ত সংশ্নিষ্ট অন্য এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হৃদয় নিজেকে মডেল ও নৃত্যশিল্পী পরিচয় দেয়। দীর্ঘদিন ধরেই সে এমন পরিচয়ে অপকর্ম করে আসছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। তার বিষয়ে বিস্তারিত তদন্ত শুরু হয়েছে। তার আর কোনো সহযোগী রয়েছে কিনা, তা জানার চেষ্টা চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

সর্বশেষ খবর

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট